Life Expectancy Calculator আপনার বয়সের পরিসীমা দেখুন

বিসমিল্লাহির রাহমানীর রাহীম

মানুষের জীবন মৃত্যু সবই আল্লাহর হাতে । তিনি ছাড়া কেউ জানেনা কে কখন শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করবেন ।  তবে মানুষের দৈনন্দিন চলা ফেরার উপরও কিছুটা নিভর্র করে । আল্লাহ আমাদের তাকদীরকে দুই ভাগে বিভক্ত করেছেন -
১) তাকদীরে মুআল্লাক । যা চেষ্ট, সতর্কতা, সাধনায় পরিবর্তন হবে । যেমন - যে কোন জুকি পূর্ণ কাজে সতর্কতা অলম্বন করা, অলসতা না করা এই ভেবে যে, হায়াত-মাউত আল্লাহর হাতে, মরণ আসলে এমনে মরে যাব ।
২) তাকদীরে মুবরম । যা কখনো পরিবর্তন হবেনা আল্লাহ যে রকম লিখে রেখেছেন সেরকমই ঘটবে আপনি শত চেষ্টার পরও সামান্যতম রদবদল করতে পারবেন না । তাহলে প্রশ্ন জাগে আমরা কিভাবে বুঝবো কোনটা পরিবর্তনশীল আর কোনটা অপরিবর্তনশীল ?

আমাদেরকে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে যদি সফল হই বলতে হবে সাধনা করে আমরা ভাগ্য পরিবর্তন করে নিয়েছি, আর ব্যর্থ হলে মানতে হবে আল্লাহ আমাদের জন্য বরাদ্দ রেখে ছিল এতটুকু । ভুমিকা একটু বেশি হয়ে গেল, মূল টিউনে ফিরে আসি ।

আজকের টিউনে আমি এমন কয়েকটা সাইটের কথা বলতে এসেছি ষেখানে আপনি কতগুলো প্রশ্নের উত্তর দেয়ার পর আপনার বয়সসীমা কত জানিয়ে দেবে । প্রশ্নগুলো হবে  আপনার ব্যক্তিগত, আপনার চলাফেরা নিয়ে, পরিবার নিয়ে, আপনার পূর্ব পুরুষের বয়স ও রোগ নিয়ে । তাহলে আপনার বয়স কত হবে জানতে এই লিঙ্কে প্রবেশ করুন নিচের পেজটা ওপেন হবার পর Birthdate, Gender, Country & Postal/Zip Code দেওয়ার পর Proceed to Calculator এ যান । প্রশ্নের উত্তর সিলেক্ট করতে শুরু করুন এবং শেষের পেজটিতে আপনার ইমেল আইডি দিন । আপনাকে মেইল করে রেজাল্ট পাঠিয়ে দেবে ।tune41

এবার আপনাদের একটা পরিচিত সাইটের সাথে আবার পরিচয় করে দেব । এই লিঙ্কে   গেলে তা বুঝতে পারবেন । এই সাইটিতে আপনারা Life Expectancy Calculator ছাড়াও Expense Calculator ও Income  Calculator পাবেন । তাহলে শুরু করে দিন উত্তর শেষে আপনি সম্পূর্ন ডাটা একসাথে পেয়ে যাবেন ।

৩য় এই সাইটা একটু ভিন্ন । এই লিঙ্কে প্রবেশ করার পর নিচের মতো পেজ আসবে মার্ক করা এরো চিহ্নে ক্লিক করে আপনার বয়স দিন, টাইপও করতে পারবেন অথবা মাউস দিয়ে পাশের রোলারটা উঠা নামাও করতে পারেন ।

tune45 

৪র্থ এই সাইটটিতে আপনি ১ম ও ২য় টির মতো খুব বেশি প্রশ্নের সম্মুখিন হতে হবে না । সামন্য প্রয়োজনীয় কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সাথে সাথে রেজাল্ট দেখতে পাবেন । তাহলে প্রবেশ করুন

tune44

 

শেষ জীবনে বছরের পর বছর বিছনায় শুয়ে বেঁচে থাকা এবং হেঁটে চলে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার মধ্যে অনেক পার্থক্য এ সবি ভাগ্য, হয়তো আপনার কিছু অসচেতনতা, অসতর্কতা আপনাকে পঙ্গু বানিয়ে রাখবে সারাজীবনের জন্য ।  উল্লেখিত সাইটগুলোর কথা বিশ্বাস করার কোন দরকার নাই । কেননা ওরা আপনার উত্তরের ভিত্তিতে আনুমানিক আপনার বয়সটা জানাবে  আর আপনি চাইলে মুর্হতে আপনার চরিত্র পরিবর্তন করতে পারেন । সর্বপরি বলি আপনার কিছু নিয়ম-নীতি ও শৃঙ্খলা আপনাকে সুস্থ, সবল ও সুন্দর জীবন প্রদান করবে ।

সকলকে অসংখ্য ধন্যবাদ

Level 0

আমি দেলোয়ার খতিবী। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 10 বছর 11 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 6 টি টিউন ও 382 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।

সময়ের সাথে সাথে মানুষের চাহিদা ও পরিবর্তন হয়ে যায় ।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

কার মৃত্যু কখন হবে, বা কে কতদিন বেচে থাকবে তা কেউ জানে না। তাই বলে কি নিজেকে ইচ্ছা করে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেবো, তাতো হয় না। তাই সর্বদা সতর্ক থাকবেন।
পরকালের জন্য নিজেকে তৈরী করুন। কেননা “الدنيا مزرعة الاخرة” (দুনিয়া পরকালের শস্যক্ষেত স্বরূপ।)

ধন্যবাদ টিউনের জন্য।

ভালো টিউন ধন্যবাদ আপনাকে।

Level 0

দেলোয়ার খতিবী ভাই,আপনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি টপিকটি উপস্হাপন করার জন্য , সাইটির সন্ধান দেয়ার এবং এটা নিয়ে আগে টিউন হয়েছে, কিন্তু এত বিস্তারিত ছিল না ।

প্রথমে জানাই সালাম, আপনাকে অসংখ ধন্যবাদ এই রকম একটা টিউন্স পোষ্ট করার জন্য।

    আপনার উপরও শান্তি বর্ষিত হোক, মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ।

ধন্যবাদ ভাই,,,,,,,,,,,,,

ধন্যবাদ আপনাকে।

Level 0

Thank you Bhai

ধন্যবাদ, দেখি অবস্থা কি?

আপনি লিখছেন,
(আমাদেরকে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে যদি সফল হই বলতে হবে সাধনা করে আমরা ভাগ্য পরিবর্তন করে নিয়েছি, আর ব্যর্থ হলে মানতে হবে আল্লাহ আমাদের জন্য বরাদ্দ রেখে ছিল এতটুকু ) তার মানি আপনি বলতে চাচ্ছেন, এই পৃথিবীতে যা কিছু ভাল / স্থায়ী / দীর্ঘস্থায়ী হই এই সব কিছই মানুষের চেষ্ঠার অবদান? আর কিছু ব্যর্থতা তার সবটুকু দোষই আল্রাহর জন্য?না ভাই এই ব্যপারে আপনার সাথে আমি একমত হতে পারলাম না। কারণ, আল্লাহ তায়ালা সুরাতুল কামারের ৫২ও ৫৩ নাম্বার আয়াতে বলেন : وكل شيئ فعلواه في الزبر * وكل صغير وكبير مستطر. তাদের সকল কার্যকলাপ লিপিবদ্ধ আছে তাদের আমল নামায় * আছে ক্ষুদ্র ও বৃহৎ সব কিছুই। আশা করি এই ব্যপার গুলো আরো একটু বুঝিয়ে বলবেন। ধন্যবাদ আপনাকে।

    আল্লাহ যা কিছু করেন মানুষের কল্যাণের জন্য করেন । আল্লাহকে দোষারোপ করতে যাব কেন ? আল্লাহ আমাদেরকে নামাজের পর রিযিক অনুসন্ধান করার জন্য বলেছেন । আমরা ঘরে বসে থাকলেতো আমাদের ভাগ্য পরিবর্তন তো হবে না । তাই বললাম সাধনা করে আমরা ভাগ্য পরিবর্তন করার কথা ।

    আল্লাহ অদৃষ্টে যা লিখে রেখেছন তা-ই হবে । খারাপ হলে আল্লাহর দোষ তা তো বলিনি, অদৃষ্টে এমনই ছিল সেটা মানতে হবে বলেছিলাম ।

দেলোওয়ার খতিবী ভাই, আপনার প্রতি রইলো সালাম।
আপনার বক্তব্যের উপর আমার দেওয়ার কেমন্টের আরো কিছু অংশ সংযোগ করতে চাই।
এক. আপনি পরীক্ষা করে দেখেছেন কি আপনি আর কত বছর বাঁচবেন???? অবশ্যই যানাবেন কিন্তু।

দুই. মুসলমানদের স্পষ্ট ধারণা হল : কুর্আনে আল্রাহ তায়ালা যে সকল বিষয়ে নিষেধ করেছেন তা থেকে বিরত থাকা আর যে সকল বিষয়ে আদেশ করেছেন তার পুর্ণ তাবেদারি করা একান্ত কর্তব্য। কেউ অলসতা বা মুর্খতার কারণে যদি পরিপূর্ণ ইসলাম কে অনুস্বরণ করতে না ও পারে কিন্তু অন্তরে যদি এর জন্য অনুতাপ থাকে তাহলে আল্লাহ তায়ালা বলেন, لا تقنطوا من رحمة الله . أن الله يغفر الذنوب جميعا ، إنه هو الغفور الرحيم* তোমরা যারা নিজেদের উপর জুলুম করে ফেলেছে, তার পর ও আমার রহমতের আশা থেকে নৈরাশ হই ও না। আমি ইচ্ছা করলে তোমাদের যাবতীয় গুনাহ সমুহ ক্ষমা করে দিতে পারি। কিন্তু আল্রাহ তায়ালা যে বিষয় সম্পর্কে কুরআনে স্পষ্ট ঘোষণা দিয়েছেন যে, এটা আমি ছাড়া আর কেউ যানে না, এই ধরণের কোন বিষয় কে বিজ্ঞান বা প্রযুক্তির মাধ্যমে কেউ যানে বলে দাবি করলে মুসলমানরা তা কখনোই বিশ্বাষ করতে পারে না। আর যদি কেউ জেনে বুঝে বিশ্বাষ করে তাহলে তার ঈমান নিয়ে সংশয় হয়ে পড়বে। মৃত্যু সম্পর্কে আল্রাহ রাব্বুল আলামিন ২১ তম পারায় ১৩ নাম্বার পৃষ্ঠায় সুরায়ে লুকমানের ৩৪ নাম্বার আয়াতে বলেন যে, وما تدري نفس بأي أرض تموت , إن الله عليم خبير* নিশ্চই কেউ যানে না কখন কোন স্থানে সে মৃত্যু বরণ করবে। আল্লাহ তাআলাই সর্বজ্ঞ, সর্ব বিষয়ে সাম্যক জ্ঞাত। সুতরাং ভাই, আমার মনে হয় এই ধরণের কোন বিষয় নিয়ে মাথা বেশি ঘামাইলে এক সময় হয়তবা ঈমান নিয়ে সংশয় দেখা দিবে। ধন্যবাদ আপনাকে।

    এক. আমি সবগুলো সাইট পরিক্ষা করে এই টিউনটি করেছিলাম ।

    দুই. আপনি আমার পোষ্টের নিচের লাইনগুলো না পড়ে আপনার মন্তব্যের বাকি অংশটুকু সংযোগ করেছেন । আমি উল্লেখ করে দিয়েছি যে, “উল্লেখিত সাইটগুলোর কথা বিশ্বাস করার কোন দরকার নাই”। বিশ্বাস না করলে তো আর ঈমান নিয়ে টানা-টানির প্রশ্নই আসে না ।

    ধন্যবাদ আপনার সুন্দর মতামতে জন্য ।