লিনাক্সভ্রান্তি-২: লিনাক্সের বদন-সুরৎ অতিশয় খটর-মটর

প্রথম প্রথম আমার ও লিনাক্স সম্পর্কে  ওনেক ভ্রান্ত ধারনা ছিল । উইন্ডোজ নিয়ে অনেক মজায় ছিলাম  ভাবতাম জানালাই বোধহয় অনেক উত্তম । তারপর বিভিন্ন জনের নিকটে লিনাক্স এর কথা শুনি কিন্তু ভয়ে লিনাক্স কি তা জানার চেষ্ঠা পর্যন্ত করিনি । লিনাক্স সম্পর্কে মোটামোটি ধারনা পাই  হিমায়িত দিহান ভাইয়ের এই টিউনটি পড়ে । তাই যারা লিনাক্সে আসতে চান কিন্তু ভুল ধারনার কারনে আসতেছেন না  তাদের জন্যই মুলত আমার এই টিউন  । এই টিউন টির প্রথম পর্বটি  লিখেছিলেন আমাদের আরেক টিউনার রুপালি গিটার ভাই সেটি দেখতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন । এই পোষ্ট  টি আসলে একটি কপি পেষ্ট পোষ্ট এটির মুল লেখক অভ্রনিল ভাই।

আমার অভিজ্ঞতা বলে যে লিনাক্স শব্দটার সাথে চার ধরনের মানুষ জড়িত থাকে — যারা কখনো লিনাক্সের নাম শুনেননি, যারা লিনাক্সকে ভয়াবহ ভালবাসেন, যারা লিনাক্স ব্যবহার করতে ভয় পান এবং যারা লিনাক্স নিয়ে উল্টোপাল্টা অমূলক কথা বলে বেড়ান। পয়লা দু’দলকে নিয়ে কোন সমস্যা হয়না। কিন্তু শেষের দু’দল একটির সাথে আরেকটি ওতোপ্রতোভাবে জড়িত। লিনাক্স নিয়ে বিভিন্ন ভ্রান্ত ধারণার উৎপত্তি সাধারণত শেষের এ দু’দল থেকেই ঘটে থাকে। এসব ভ্রান্ত ধারণার বশবর্তী হয়ে অনেকে লিনাক্স শব্দটি শুনলেই উল্টোদিকে দৌড় দেবার ধান্দায় থাকেন। তাই ভাবলাম এসব ভ্রান্ত ধারণাগুলোকে একহাত দেখে নেবার জন্য ধাপে ধাপে একটা সিরিজ বের করা দরকার। সেই ভাবনারই একটি ছোটখাট ফসল “লিনাক্সভ্রান্তি” সিরিজ। আমি চেষ্টা করব “লিনাক্সভ্রান্তি” সিরিজটিতে লিনাক্স নিয়ে প্রচলিত বিভিন্ন ভ্রান্ত ধারণাগুলোকে দূর করতে, যাতে করে লোকজন উল্টোদিকে না দৌড়ে অন্তত ঠিক দিকে দৌড়তে পারে। আর এ সিরিজটিতে “লিনাক্স” বলতে সামগ্রিকভাবে “উবুন্টু”কেই ধরা হচ্ছে/হবে।

আমি মোটামুটি বাজি রেখে বলতে পারি যে ‘লিনাক্স’ — শব্দটা শুনলেই বেশিরভাগ মানুষজনের মাথায় বাই ডিফল্ট যেই দৃশ্যটা খেলা করে সেটা হল — কুচকুচে কালো স্ক্রিনের সামনে একজন উশকোখুষকো চুল-দাঁড়িওয়ালা লোক বিরস বদনে বসে কিবোর্ডে খটর-মটর করে টাইপ করে যাচ্ছে আর সাথে সাথে সেই কালো স্ক্রিনে বিভিন্ন দুর্বোধ্য কমান্ড লেখা হয়ে যাচ্ছে। স্ক্রিনে কোন আইকন নেই, কেবল কঠিন কঠিন কমান্ড — রসকষহীন এই দৃশ্যটা চিন্তা করলেই যে কারো গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠবে (অন্যদের দোষ দেইনা, আমার নিজেরও গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠে)। ‘এই দৃশ্য’টা লিনাক্সের সাথে এমনভাবে খাপেখাপে আটকে গেছে যে হলিউডের মুভিগুলোতেও যখন হ্যাকিং-ফ্যাকিং টাইপের উচ্চমার্গীয় জিনিস দেখায়, তখন সেখানেও কালো স্ক্রিনে গাদা গাদা লিনাক্সের কমান্ডের খেলা দেখানো হয়। এসব দেখে যে কারো মনে গেঁথে যাওয়াটাই স্বাভাবিক যে খটর-মটর খোমার লিনাক্সের সাথে কমান্ড-টমান্ড আর কালো স্ক্রিনের মধুর সম্পর্ক! এখন আমি যদি বলি যে লিনাক্সের চেহারা শুধু কালো না বরং সে দুনিয়ার আপামর রং নিয়ে সাজুগুজু করতে পারে, আর লিনাক্সের বদনসুরৎ যে শুধু রসেকষেই টইটম্বুর তা-ই নয় বরং এমনভাবে রসালো যা কী না আপনি কল্পনাও করতে পারবেননা — তাহলে কী বলবেন? ভড়কে গেলেন? হে হে হে … আপাতত কিছু বলার দরকার নেই, শুধু এই লেখাটা পড়তে থাকুন।

এককালে আসলেই লিনাক্সের চেহারা বেশ খটমটে ছিল — কিন্তু জন্মের বিশ বছর পর কোটি কোটি ডেভেলপারের হাতে মেকআপ খেতে খেতে লিনাক্সের চেহারা সুরৎ এখন অতিশয় কমনীয় (এমনকি রমনীয়ও বলা যায়)! এখন অনায়াসেই মাউস দিয়ে টেপাটেপি করে কাজ করা যায়, রয়েছে চমৎকার সব থিম, দারুণ দারুণ সব ইফেক্টের ছড়াছড়ি। মোদ্দাকথা লিনাক্সের এই নজরকাড়া রূপে যে কেউ বারবার ফিরে তাকাতে বাধ্য। প্রশ্ন করতেই পারেন যে ‘নজরকাড়া’টা কতটুকু নজরকাড়া? তাহলে নীচে উবুন্টুর নতুন রিলিজের (১১.০৪ — ন্যাটি নারহোয়াল) কয়েকটি স্ক্রিনশট দেখুনঃ (ছবিগুলো বড় করে দেখতে ছবিগুলোতে ক্লিক করুন)

মন ভরেনি? তাহলে আসুন আমরা আরো সুন্দর আরো রূপের আঁধার কুবুন্টুর নতুন রিলিজের (১১.০৪ — ন্যাটি নারহোয়াল) কয়েকটা স্ক্রিনশট দেখিঃ (ছবিগুলো বড় করে দেখতে ছবিগুলোতে ক্লিক করুন)

মন ভরেছে? এতো গেল ডিফল্ট চেহারা সুরৎ। ইচ্ছা করলে এই চেহারাকেও পাল্টে ফেলা যায়। কতটুকু পাল্টে ফেলা যায়? এটাই ভাবছেন তাইনা? ব্যবহারকারীরা নিজেদের উবুন্টু/কুবুন্টু ডেস্কটপের চেহারা কেমন করতে পারে তার একটা ছোটখাট শোডাউন দিলাম নীচে। নীচে নেট থেকে সংগৃহীত কয়েকজন কুবুন্টু ব্যবহারকারীর ডেস্কটপের কিছু নমুনা দেখুন। (ছবিগুলো বড় করে দেখতে ছবিগুলোতে ক্লিক করুন)

এবার উবুন্টুর পালা। চলুন দেখি তাহলে একেকজন উবুন্টু ব্যবহারকারী তাদের ডেস্কটপকে কী রূপে সাজিয়েছেন।

কী! চমকে গেলেন? ভাবছেন লিনাক্সের এমন চেহারা হয় নাকি? তাহলে এবার আসল গুমড় ফাঁক করে দেই — এইগুলা কিছুই না। আমি বর্তমানে ব্যবহার করছি ল্যুসিড লিংক্স (উবুন্টু ১০.০৪)। আমি নিজে সাদাসিধা মানুষ, কম্পিউটারটাও তাই সেরকম সাদাসিধা — যেকারণে উবুন্টুতে উড়াধুড়া ইফেক্ট খুব একটা পছন্দও করিনা ব্যবহারও করা হয়না। তো আমার সাদাসিধা কম্পিউটারের কয়েকটা স্ক্রিনশট দেখুনঃ (ছবিগুলো বড় করে দেখতে ছবিগুলোতে ক্লিক করুন)

আপনার এতদিনের শুনে আসা খটর-মটর লিনাক্সের চেহারার সাথে তো উপরের ছবিগুলোর কোনও মিল নেই — তাইনা! আসলে অপারেটিং সিস্টেমের চেহারা সুরতের সংজ্ঞা একেকজনের কাছে একেক রকম। কমান্ড-টমান্ড দিয়ে কম্পিউটার চালানোর প্রক্রিয়া বেশিরভাগ মানুষকে ভয় পাইয়ে দিলেও অনেকেই কিন্তু ওটাতেই সাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। আবার ঝাকানাকা গ্রাফিকাল ইন্টাফেস সিংহভাগ ব্যবহারকারীকে মুগ্ধ করলেও রিসোর্স বেশি লাগে বলে অনেকেই ওসবকে পছন্দ করেনা। লিনাক্স এই দু’ধরনের ব্যবহারকারীকেই সুবিধা দেয়। কমান্ডলাইন থেকে শুরু করে উড়াধুড়া বাক্স ইফেক্ট, সিলিন্ডার ইফেক্ট, মায় ডেস্কটপে আগুন, বরফ, বৃষ্টি, পানি — সব কিছুই সম্ভব এখানে।

মনে আছে আমি বলেছিলাম যে আমার কম্পিউটার খুব সাদাসিধা? জন্টি জ্যাকলোপ যখন ব্যবহার করতাম তখনও একই রকম সাদাসিধাই ছিল। উপরের ভিডিওতে তাই সাদাসিধে চেহারাটাই ধরা পড়েছে। যদি হার্ডকোর ইফেক্টওয়ালা উবুন্টু কম্পিউটারের বদন সুরৎ দেখতে চান তাহলে নিচের ভিডিও লিংক তিনটাতে একটু ঢুঁ মারুন। অবশ্য ইউটিউব বা গুগলে সার্চ করলে এরকম ভুরি ভুরি নজির দেখবেন।

এইবার চট করে বলুন দেখি — লিনাক্সের লাবন্যময় চেহারা নিয়ে আপনার আর কতটুকু সন্দেহ আছে? জানাবেন কিন্তু ?

ভালো থাকবেন ।

Level 0

আমি সাইদ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 10 বছর 5 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 3 টি টিউন ও 61 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 0 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 0 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস

অতি চমৎকার। ধন্যবাদ

Level New

সাইদ ভাই, আপনাকে অনেক ধন্যবাদ ।
মনেপ্রানে লিনাক্স এ যেতে চাচ্ছি, কিন্তু গেইম এর জন্য যাইতে পারতিসি না 🙁 আমি লিনাক্স ব্যবহার করেছি অনেকদিন, খারাপ লাগে নাই ।

    ইশতিহাক ভাই উবুন্টুতেও অনেক ভালো ভালো 3D গেম খেলা যায় । তাছাড়া আপনি ঊইন্ডোজের অনেক নতুন ভার্সনের গেম খেলতে পারবেন একটি সফটওয়ার wine ইনষ্টলের মাধ্যমে । আপনি নিচের লিঙ্ক টি দেখতে পারেন ।
    http://appdb.winehq.org/

লিনাক্স ব্যবহার করতে চাই কিন্তু আমারা বিভিন্ন ধরনের সফর্টওয়ার ব্যবহার করি এই গুলো কি লিনাক্সে ব্যবহার করা যাবে। আমি kaspersky liscance antivirus ব্যবহার করি লিনাক্সে কি ব্যবহার করা যাবে।ব্যবহার করতে হলে কি করতে হবে একটু জানাবেন।

    তানিম ভাই আপনি উইন্ডোজের দরকারি অনেক সফটওয়ার এর বিকল্প ওপেনসোর্স এ আছে । আর লিনাক্স এ ভাইরাস নাই বললেই চলে তাই আপনাকে এন্টিভাইরাস ব্যবহার করা লাগবেনা । কারন লিনাক্সে আপনার অনুমতি ব্যতিত কোন সফটওয়ার ইনষ্টল করা যাবেনা । যার দরুন ভাইরাস অটোমিটিকেলি রান করতে পারবেনা ।

Level 0

ভাই ১ ই সাথে উইন্ডোস আর লিনাক্স ২ টা কি চালানো যাবে ? যদি যায় তবে পদ্ধতিটা জানাবেন কিন্তু।
কারন, আমি বাংলালায়ন ব্যাবহার করি, আর বাংলালায়ন এর লিনাক্স সমর্থিত কোন সফটওয়্যার নেই।
ধন্যবাদ। 🙂

    ডুয়েল বুট করে উইন্ডোজ এর সাথে লিনাক্স ইন্সটল করার জন্য সহজ পদ্ধতি হল উবি( http://adnan.quaium.com/blog/760 ) দিয়ে ইন্সটল করা।এছাড়া পার্টিশান ছাড়া ধাপে ধাপে ডুয়েল বুট করার জন্য এই লেখাটি ( http://adnan.quaium.com/blog/1236 ) পড়ুন।

banglai likhte parlam na ..ai jonno sorry ….tune onek valo laglo. amio akjon linux premi…ami ubuntu 11.04 use kori ,kintu ami vlc player install korte parsi na,install korte gelei (Package dependencies cannot be resolved) ai lekhata ase…atar kono solution ase? thakle janaben plz