গ্ল্যাডিয়েটর অনবদ্য যোদ্ধাদের অজানা তথ্য

টিউন বিভাগ অন্যান্য
প্রকাশিত
জোসস করেছেন

গ্ল্যাডিয়েটর, নাম শুনলেই চোখে ভেসে উঠে হলিউড ছবিতে রাসেল ক্রো এর হিংস্র প্রাণীর সাথে যুদ্ধরত দৃশ্যটি। পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে সাহসী এই যোদ্ধারা লড়াই করত অপর যোদ্ধা, হিংস্র প্রাণী এবং ভয়ংকর সব অপরাধীদের সাথে। রোমান সাম্রাজ্যে এই যোদ্ধাদের লড়াই চলত মৃত্যুর হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত। তারা তাদের মৃত্যু কে মেনে নিয়ে লড়াই করে মৃত্যুর মাধ্যমে হেরে যেত। তাদের এই লড়াই ছিল মানুষ কে আনন্দ দেওয়ার জন্য।

রোমান সাম্রাজ্যের এই সাহসী বীর যোদ্ধাদের নিয়ে অনেক সত্য মিথ্যা মিথ বা কাল্পনিক কাহিনী প্রচলিত রয়েছে, তবে আজ গ্ল্যাডিয়েটরদের বিষয়ে কয়েকটি  সঠিক তথ্য তুলে ধরা হলো।

  1. যুদ্ধক্ষেত্রের রোমাঞ্চ, জনতার হর্ষ-ধ্বনি, বিজয়ের মহিমা এবং প্রচুর অর্থের পুরষ্কারের আশায় সাধারণ বা মুক্ত মানুষেরাও গ্ল্যাডিয়েটর যোদ্ধাদের নামের তালিকায় নিজের নাম প্রবেশ করায়। এই ফ্রিল্যান্স যোদ্ধাদের মধ্যে কেউ হতাশাগ্রস্ত পুরুষ অথবা সাবেক দক্ষ সৈনিক ছিল কিন্তু এদের কিছু অনেকে ছিল অভিজাত পরিবারের যোদ্ধা। তাই অনেকে বলে থাকেন গ্ল্যাডিয়েটর যোদ্ধারা সকলে দাস ছিল। কিন্তু এ তথ্য ভুল।
  2. হলিউড সিনেমা এবং টেলিভিশনে দেখানো হয় তারা সব সময় মরার জন্য লড়াই করত কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে এটা পুরোপুরি সত্য ছিল। এই খেলাটি একটি সুনির্দিষ্ট নিয়ম – কানুন অনুসারে হত। ম্যাচ পরিচালনার জন্য রেফারি থাকত। সম বয়সী সম দক্ষতা পূর্ণ দুজনের মধ্যে যুদ্ধ হত। যদি কোন একজন মারাত্মক ভাবে আহত হয়ে পড়ত তাহলে রেফারি অনেক সময় ম্যাচ বন্ধ করে দিত। আবার অনেক সময় দুজন যোদ্ধা কে সম্মান পূর্বক যুদ্ধের ময়দান ছাড়ার অনুমতি দেওয়া হত যদি তারা ভালো কিছু করতে পারতেন।

গ্ল্যাডিয়েটরদের জীবন নৃশংস এবং সংক্ষিপ্ত হলেও সব ম্যাচে ই ঘটবে এমন সঠিক নয়, তবে কিছু ম্যাচের নিয়ম ই ছিল মৃত্যু পর্যন্ত লড়াই।

  1. যখন কোন গ্ল্যাডিয়েটর মারাত্মক ভাবে আহত হয়ে যান এবং তিনি তার অস্ত্র নিচের দিকে ফেলে দিতেন তখন তার ভাগ্য নির্ভর করত দর্শকদের সিদ্ধান্তের উপর। আর যদি কলিসিয়াম এর মধ্য খেলা টি হত তাহলে সম্রাট যা বলতেন তাই করা হত হেরে যাওয়া যোদ্ধার সাথে। অনেকে মনে করতেন যদি সম্রাট থাম্বস ডাউন বা বৃদ্ধাঙ্গুলি নিচের দিকে নির্দেশ করতেন তাহলে ঐ যোদ্ধা কে মেরে ফেলা হবে। কিন্তু এই তথ্য টি সঠিক নয়। ঐতিহাসিকেরা মনে করেন যে থাম্বস ডাউন না বরং সম্রাট যদি দুই হাত প্রসারিত করে থাম্বস আপ করতেন তবে সেই যোদ্ধার মৃত্যু হত। আবার যদি সাদা রুমাল নাড়ানো হয় তবে যোদ্ধা কে মেরে ফেলা হবে না। আর যদি তাকে মেরে ফেলার নির্দেশ দেওয়া তাহলে বিজয়ী গ্ল্যাডিয়েটর তার বিপক্ষ প্রতিযোগীর দেহ ছিন্ন ভিন্ন করে ফেলতেন।
  1. কলোসিয়াম এবং অন্যান্য রোমান যুদ্ধক্ষেত্রে গ্ল্যাডিয়েটর যোদ্ধারা হিংস্র প্রাণীদের সাথে লড়াই করত। পৃথিবীর ইতিহাসে একমাত্র এই যোদ্ধারা হিংস্র প্রাণীদেরও হারিয়ে দিয়েছে। “ভেনাতোরেস” এবং “বেস্টিয়ারি” নামক বিশেষ গ্ল্যাডিয়েটর যোদ্ধারা সিংহ, কুমির, ভাল্লুক এমন কি হাতিদেরও সাথে লড়াই করত। সম্রাট ট্রাজেনের ১২৩ দিনের এক অনুষ্ঠানে প্রায় ১১০০০ প্রাণী হত্যা করা হয়। গ্ল্যাডিয়েটররা এই দিক থেকে আজও অনন্য।

  1. পুরুষদের পাশাপাশি মেয়েরাও গ্ল্যাডিয়েটর হিসেবে যুদ্ধ করেছে। তবে অধিকাংশ মেয়েদের জোর করে এই খেলায় আনা হতো তবে কিছু স্বাধীন মেয়ে নিজের ইচ্ছায় তলোয়াের হাতে তুলে নিয়েছিল। ঐতিহাসিকেরা নিশ্চিত নন যে কখন থেকে মেয়েরা গ্ল্যাডিয়েটর যোদ্ধা হিসেবে এই লড়াই অংশগ্রহণ করতে শুরু করে।
  1. যদিও গ্ল্যাডিয়েটরদের কে সম্মান দেওয়া হত না কিন্তু তারা অনেক খ্যাতি অর্জন করেছিল। তাদের ছবি বিভিন্ন স্থানে ঝুলানো থাকত। বাচ্চারা তাদের অর্জন গুলোর সংখ্যা নিয়ে খেলত। এমনি কি আজকের আধুনিক যুগের মত তারা পণ্যের প্রচার করতেন এবং আধুনিক যুগের মত ই তখন মেয়েরা গ্ল্যাডিয়েটরদের প্রেমে হাবু-ডুবু।

Level 0

আমি মার্স টেক। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 3 বছর 2 মাস যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 35 টি টিউন ও 0 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 5 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 4 টিউনারকে ফলো করি।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস