চিকিৎসা পরীক্ষায় ব্যবহৃত গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রসমূহ [পর্ব-০১] :: X-Ray, Ultrasonography, CT Scan, MRI

প্রকাশিত
জোসস করেছেন
Level 4
২য় বর্ষ, গাইবান্ধা সরকারি কলেজ, গাইবান্ধা

আশাকরি আল্লাহর রহমতে সাবাই ভালো আছেন। আজ আপনাদের জন্য চিকিৎসায় প্রযোজনীয় কিছু পরীক্ষার তথ্য নিয়ে এসেছি। চলুন জেনে নিই।

আমরা দৈনন্দিন জিবনের চলাফেরায় নানাভাবে অসুস্থ হয়ে পরি। ফলে আমাদের ডাক্তারের কাছে যেতে হয়। ডাক্তার নানা ধরনের পরীক্ষা দেয়। রোগ নির্ণয়ের জন্য পরীক্ষা জরুরি। তা না হলে সঠিক রোগ নির্বাচন হয় না। ফলে সঠিক চিকিৎসাও হয় না। ফলে আমরা অসুস্থই থেকে যাই। অনেক সময় রোগ ভয়াবহ আকার ধারন করে। তাই আমাদের চিকিৎসার জন্য পরীক্ষা করতেই হবে। আর এক্ষেত্রে আমাদের জ্ঞান থাকা একান্ত জরুরী। তাই আপনাদের জানাতেই আজকের এই টিউন।

১. X-Ray

এক্সরে হলো এক ধরনের তাড়িতচৌম্বক বিকিরণ। এক্সরের তরঙ্গদৈর্ঘ্য সাধারণত আলোর তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের চেয়ে অনেক কম। ১৮৯৫ সালে উহলহেলোম রন্টজেন এটি আবিষ্কার করেন। রঞ্জন রশ্মির আরেক নাম এক্সরে। রঞ্জন রশ্মির প্রকৃতি যখন জানা ছিলনা তখন অজানা রশ্মি হিসেবে নামকরণ করা হয় এক্সরে। এক্সরে উচ্চ ভেদন ক্ষমতা সম্পন্ন। রোগ নির্ণয়ে চিকিৎসা বিজ্ঞানে এক্সরে এর অবদান অপরিসীম।

এক্সের সুবিধা

  • ১.স্থানচ্যুত হার, হারে ফাটল, ভেঙে যাওয়া হার ইত্যাদি এক্সরের সাহায্যে খুব সহজেই শনাক্ত করা যায়।
  • ২.দাঁতের গোড়ায় ঘা এবং ক্ষয় নির্ণয়ে এক্সরে ব্যবহৃত হয়।
  • ৩. এক্সের সাহায্যে পিত্তথলি ও কিডনির পাথর শনাক্ত করা যায়।
  • ৪.বুকের এক্সরের সাহায্যে ফুসফুসের রোগ নিউমোনিয়া ও ফুসফুস ক্যান্সার নির্ণয় করা যায়।
  • ৫.Radio therapy প্রয়োগ করে এক্সরের মাধ্যমে ক্যান্সারের চিকিৎসা করা যায়।

২. Ultrasonography

আলট্রাসনোগ্রাফি হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যা উচ্চ কম্পাঙ্কের শব্দ প্রতিফলন এর উপর নির্ভরশীল। রোগ নির্ণয়ের জন্য যে আল্ট্রাসাউন্ড ব্যবহার করা হয় সেই শব্দের কম্পাঙ্ক 1 থেকে 10 মেগাহার্টজ। আল্ট্রাসনোগ্রাফির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যবহার স্ত্রীরোগ ও প্রসূতি বিজ্ঞানে লক্ষ্য করা যায়। এক্সরের তুলনায় আলট্রাসনোগ্রাফি অধিকতর নিরাপদ রোগ নির্ণয় পদ্ধতি।

আল্ট্রাসনোগ্রাফির কাজ

  • ১. এর সাহায্যে ভ্রূণের আকার জানা যায়।
  • ২. ভ্রুনের পূর্ণতার সম্পর্কে ধারণা লাভ করা যায়।
  • ৩. ভ্রূণের স্বাভাবিক বা অস্বাভাবিক অবস্থান জানা যায়।
  • ৪. এর সাহায্যে জরায়ুর টিউমার শনাক্ত করা যায়।
  • ৫. পিত্ত পাথর ও টিউমার শনাক্তকরণে আল্ট্রাসনোগ্রাম ব্যবহার করা যায়।

এছাড়াও আরো বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা রয়েছে আল্ট্রাসনোগ্রাম পদ্ধতির মাধ্যমে।

৩. CT Scan

CT scan শব্দটি ইংরেজি Computed tomography Scan এর সংক্ষিপ্ত রুপ। চিকিৎসাবিজ্ঞানে এটি প্রতিবিম্ব তৈরির একটি প্রক্রিয়া। কোন বস্তুর ফালি বা অংশের ত্রিমাত্রিক প্রতিবিম্ব তৈরি করা হয়। সিটিস্ক্যান একটি বৃহৎ যন্ত্র। এ যন্ত্রে এক্সরে ব্যবহৃত হয়।

CT Scan এর সুবিধা

  • ১.সিটি স্ক্যান এর সাহায্যে শরীরের কোমল টিস্যু, রক্তবহনকারী শিরা বা ধমনী, ব্রেন, ফুসফুস ইত্যাদির ত্রিমাত্রিক ছবি পাওয়া যায়।
  • ২.লিভার, ফুসফুসে এবং অগ্নাশয়ের ক্যান্সার নির্নয়ে সিটিস্ক্যান ব্যবহার হয়।
  • ৩.টিউমার সনাক্তকরণ, টিউমারের আকার, অবস্থান এবং টিউমারটি পাশ্ববর্তী টিস্যুকে কতখানি আক্রান্ত করেছে তাও জানা যায়।
  • ৪.মস্তিষ্কের ভিতরে কোন ধরনের রক্তপাত, ধমনীর ফুলা এবং টিউমারের উপস্থিতি সম্পর্কে জানা যায়।

সিটি স্ক্যান এর দ্বারা রক্ত সঞ্চালনে সমস্যা আছে কিনা তাও জানা যায। সাধারণত গর্ভবতী মহিলাদের সিটিস্ক্যান পরীক্ষা করা হয় না। কারণ ডাই নামক পদার্থের কারণে অ্যালার্জি চাপ দেয়।

৪. MRI

MRI এর পুর্ণরুপ Magnetic Resonance Imaging. এমআরআই যন্ত্রে শক্তিশালী চৌম্বক ক্ষেত্র এবং রেডিও তরঙ্গ ব্যবহার করে শরীরের কোনো স্থানের বা অঙ্গের বিস্তৃত প্রতিবিম্ব গঠন করা হয়। এমআরআই যন্ত্রে এক্সরে ব্যবহার করা হয় না। এটি নিউক্লীয় চৌম্বক অনুনাদ বা Nuclear Magnetic Resonance এর ভৌত এবং রাসায়নিক নীতির উপর ভিত্তি করে কাজ করে। এমআরআই হলো ব্যথাহীন ও নিরাপদ রোগ নির্ণয় পদ্ধতি।

এ পদ্ধতির কাজ

  • ১. পায়ের গোড়ালি মচকানোয় জখমের বা আঘাতের তিব্রতা নিরুপন করে।
  • ২. পিঠের ব্যথার তিব্রতা নিরুপন করে।
  • ৩. ব্রেন এর বিস্তৃত প্রতিবিম্ব তৈরি করে।
  • ৪. মেরু রজ্জুর বিস্তৃত প্রতিবিম্ব তৈরি করে।

এছাড়াও নানা পরীক্ষায় MRI ব্যাবহৃত হয়।

পরিশেষে একটি কথাই বলব, আপনারা সবাই নিজের খেয়াল রাখবেন এবং সর্বদা স্বাস্থ্য সচেতন থাকবেন। এই টিউনে ২য় পর্ব দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

টিউন ভালো লাগলে জোসস দিতে ভুলবেন না। টিউন সম্পর্কে কোন মন্তব্য থাকলে টিউমেন্ট এ জানাবেন অবশ্যই। এ পর্যন্ত আমার সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

Level 4

আমি মোঃ তানজিন প্রধান। ২য় বর্ষ, গাইবান্ধা সরকারি কলেজ, গাইবান্ধা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সৌশল নেটওয়ার্ক - টেকটিউনস এ আমি 4 মাস 2 সপ্তাহ যাবৎ যুক্ত আছি। টেকটিউনস আমি এ পর্যন্ত 56 টি টিউন ও 45 টি টিউমেন্ট করেছি। টেকটিউনসে আমার 8 ফলোয়ার আছে এবং আমি টেকটিউনসে 4 টিউনারকে ফলো করি।

কখনো কখনো হারিয়ে যাই চিন্তার আসরে, কখনোবা ভালোবাসি শিখতে, কখনোবা ভালোবাসি শিখাতে, হয়তো চিন্তাগুলো একদিন হারিয়ে যাবে ব্যাস্ততার ভীরে। তারপর ব্যাস্ততার ঘোর নিয়েই একদিন চলে যাব কবরে।


টিউনস


আরও টিউনস


টিউনারের আরও টিউনস


টিউমেন্টস